parbattanews bangladesh

খাগড়াছড়িতে পাহাড়ি-বাঙালি পাল্টা-পাল্টি ত্রিমুখী কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস পালন

নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

খাগড়াছড়িতে পাহাড়ি ও বাঙালি সংগঠনগুলোর পাল্টা-পাল্টি ত্রিমুখী কর্মসূচীর ম্যধ্য দিয়ে  আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস পালিত হয়েছে। জেএসএস(এমএন) ও বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম পৃথক কর্মসূচি থেকে  আদিবাসী হিসেবে সাংবিধানিক স্বীকৃতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির দ্রুত বাস্তবায়নের  দাবি জানালেও পার্বত্য অধিকার ফোরাম ও বৃহত্তর পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ আদিবাসী স্বীকৃতি  দাবিকে সংবিধান ও রাষ্ট্রবিরোধী আখ্যায়িত করে প্রত্যাখান করা হয়।

খাগড়াছড়ি জেলা সদরের  খাগড়াপুরে কমিউনিটি সেন্টারে জেএসএস(এমএন) আয়োজিত সমাবেশে বক্তারা আদিবাসী হিসেবে সাংবিধানিক স্বীকৃতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির দ্রুত বাস্তবায়নের  দাবি   জানিয়ে বলেন, সরকার আদিবাসী শব্দটি ব্যবহার পরিহারে নির্দেশনা দিয়ে প্রজ্ঞাপন  জারির মাধ্যমে আদিবাসীদের অস্তিত্বকে অস্বীকার করছে।

বৃহস্পতিবার(৯ জুলাই)সকাল সাড়ে ১০টায় জেএসএস(এমএন) কেন্দ্রীয় রাজনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক বিভূ রঞ্জন চাকমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান আলোচক ছিলেন, সংগঠনের তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সুধাকন ত্রিপুরা।

বক্তব্য রাখেন, মহিলা সমিতির কেন্দ্রীয় সহ-সম্পাদিকা ববিতা চাকমা, জেএসএস(এমএন)যুব বিষয়ক সম্পাদক রণজীবন চাকমা, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের(এমএন) কেন্দ্রীয় সভাপতি সুমেধ চাকমা ও সদর উপজেলা জেএসএস(এমএন) সভাপতি কিরণ চাকমা।

একই দাবিতে খাগড়াছড়ি সরকারি মহিলা কলেজ সড়ক থেকে বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের উদ্যোগে একটি  র‌্যালি বের হয়ে শহরের প্রধান সড়ক ঘুরে মহিলা কলেজের সামনে আয়োজিত সমাবেশে বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের খাগড়াছড়ি অঞ্চলের সমন্বয়ক চাইথোয়াই মারমা দ্রুত আদিবাসী হিসেবে সাংবিধানিক স্বীকৃতিসহ শিক্ষা, সংস্কৃতি, ভূমি অধিকার নিশ্চিত করার দাবি জানানো হয়।

অপর দিকে খাগড়াছড়ি পৌর শাপলা চত্বরে পার্বত্য অধিকার ফোরাম ও বৃহত্তর পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ আয়োজিত মানববন্ধনে কথিত আদিবাসী স্বীকৃতির নামে বাংলাদেশ থেকে পার্বত্য চট্টগ্রামকে বিচ্ছিন্ন করার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, পার্বত্য অধিকার ফোরামের চেয়ারম্যান  মাঈর উদ্দিন ও বৃহত্তর পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এস এম মাসুম রানা।

বক্তারা মানববন্ধনে অভিযোগ করেন, পাহাড়ে বসবাসকারী বাঙালীরা নানাভাবে অধিকার বঞ্চিত হয়ে আসছে। কথিত আধিবাসী স্বীকৃতি দাবি করে এ অঞ্চল থেকে বৃহৎ জনগোষ্ঠীকে বিতাড়নের চুড়ান্ত ছক আঁকা হচ্ছে।

মানববন্ধনের আগে একটি মিছিল চেঙ্গী স্কোয়ার থেকে বের হয়ে শাপলা চত্বরে সমবেত হয়।