খাগড়াছড়িতে অপহৃত চার ইউপিডিএফ (প্রসীত) গ্রুপের কর্মী ২২ ঘন্টা পর উদ্ধার


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

খাগড়াছড়িতে প্রতিপক্ষ কর্তৃক অপহৃত চার ইউপিডিএফ (প্রসীত) গ্রুপের কর্মীকে প্রায়  ২২ ঘন্টা পর উদ্ধার করেছে পুলিশ।

খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাহাদত হোসেন টিটু জানান, মঙ্গলবার(১৪ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে খাগড়াছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ এলাকায় একটি টমটম থেকে উদ্ধারের পর অবরোধকারীদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ সময় সড়ক অবরোধকারীরা তাদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেয় এবং আন্দোলন সফল হয়েছে বলে শ্লোগান দেয়।

পর দুপুর ১টায় সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করে নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ইউপিডিএফ (প্রসীত) সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা সাধারণ সম্পাদক অমল ত্রিপুরা।  

ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিটের প্রধান সংগঠক উজ্জ্বল স্মৃতি চাকমার দাবি জেলার ভাইবোনছড়া ইউনিয়েনের দেওয়ানপাড়ায় অবস্থানরত সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে জেলা প্রশাসকের কাছে গতকাল সোমবার স্মারকলিপি দেয়ার পর ফেরার পথে দুপুরে ১২টার দিকে জেলা শহরের মহাজনপাড়ায় গাড়ি থেকে জনসংহতি সমিতির (এমএন) গ্রুপের সন্ত্রাসীরা সিন্ধুরায় ত্রিপুরা (৩৫), তকায় ত্রিপুরা (৩০), মশা ত্রিপুরা (৩২) ও সুকেন্দ্র ত্রিপুরাকে (৩৮) অপহরণ করে নিয়ে যায়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে সোমবার দুপুর থেকে খাগড়াছড়ি-পানছড়ি সড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে রাস্তায় গাছের গুড়ি ফেলে, ব্রিজের পাটাতন উপরে ফেলে ও টায়ার জ্বালিয়ে সড়কটি অবরোধ করে রেখেছে ইউপিডিএফ’র কর্মী-সমর্থকরা।  

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে জেএসএস(এমএন) গ্রুপের কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সুধাকর ত্রিপুরা বলেন, এটি ইউপিডিএফ’র আভ্যন্তরীন কোন্দলের জেরে হতে পারে। এ ধরনের কোন ঘটনার সাথে তাদের সংগঠন জড়িত না।

উদ্ধারের পর তকায় ত্রিপুরা সংবাদ কর্মীদের জানান, অপহরণকারীরা ছিল সশস্ত্র। তবে তাদের উপর কোন ধরনের নির্যাতন চালানো হয়নি। অপহরণকারীরা তাদের সাথে ভাল ব্যবহার করেছে এবং ঠিকমত খেতেও দিয়েছে।

তবে একটি সূত্র দাবি করেছে এরা কেউ অপহৃত হয়নি ইউপিডিএফ (প্রসীত) গ্রুপের ভয়ে আত্মগপনে ছিলেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *