কোটবাজারে পুলিশ ও জনতার মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, আটক ২


উখিয়া প্রতিনিধি:

উখিয়ার কোটবাজারে বুধবার (১০জানুয়ারি) সন্ধ্যায় পুলিশ ও জনতার মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় বিক্ষুব্ধ জনতা পুলিশের ভ্যান গাড়ি ব্যারিকেডের চেষ্টা করলে পুলিশ নির্বিচারে লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ২জনকে আটক করে পুলিশ।

রত্না পালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খাইরুল আলম চৌধুরী বলেন, সরকারি কাজে পুলিশকে বাধা দেওয়া দুঃখ জনক। এধরনের অনাকাঙ্খিত ঘটনা কারো জন্য কাম্য নয়। আগামীতে পুলিশ ও জনগণের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি না হয় সে ব্যাপারে সকলকে আরো দায়িত্বশীল হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, কোটবাজার স্টেশনের দক্ষিণপাশে মসজিদ-পিনজিরকুল সড়কে রোহিঙ্গাদের ত্রান সামগ্রীর বাজার বসে। রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে চাল, ডাল, কম্বল, সাবান, তৈল, চিনি, লবণ, শাড়ি, লুঙ্গি, দুধ, টুতপেস্টসহ নানা নিত্যপন্য সংগ্রহ করে কোটবাজারে প্রকাশ্য বিক্রয় করে আসছে।

সস্তায় এ সব নিত্যপন্য ক্রয় করতে কোটবাজারে ক্রেতাদের ভিড় জমে। কোটবাজারের ওই সড়ককে বর্মাইয়া বাজার হিসাবে সকলের কাছে পরিচিত।

স্থানীয় গ্রাম পুলিশের চকিদার জানান উখিয়া থানার এক দল পুলিশ বুধবার সন্ধ্যায় অতর্কিত অবস্থায় কোটবাজার বর্মাইয়া বাজারে হানা দেয়। পুলিশ রোহিঙ্গাদের বিপুল পরিমান ত্রান সামগ্রী বিক্রির জন্য রাখা নিত্যপন্য জব্দ করে এবং ৪জনকে আটক করে গাড়িতে তুলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, এ সময় বিক্ষুব্ধ জনতা ধাওয়া করে পুলিশের গাড়ি ব্যারিকেড দিয়ে জব্দকৃত  মালামাল ও আটক ব্যক্তিদের ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালায়। খবর পেয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার ভূমি একরামুল ছিদ্দিকের নেতৃত্বে উখিয়া থানার ওসি মো. আবুল খায়ের ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে জনতাকে লাঠি চার্জ করে চত্রভঙ্গ করে দেয়।

স্থানীয় সচেতন জনগণ জানান বাজারে নিত্যপন্য বিক্রি কালে পুলিশের অভিযান, মালামাল জব্দ ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদেরকে আটক ঠিক হয়নি।

উখিয়া থানার ওসি ঘটনার সত্যতা শিকার করে বলেন পুলিশের কাজে বাঁধা দেওয়ার মামলা রুজু করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *