মেসি ছাড়া ওদের কিছুই নেই, হুঙ্কার ক্রোয়েশিয়ার


পার্বত্যনিউজ ডেস্ক:

মনস্তাত্ত্বিক চাপের খেলা শুরু করে দিল ক্রোয়েশিয়া। নেপথ্যে নয়, প্রকাশ্যেই ছাড়া হচ্ছে হুঙ্কার। ক্রোট শিবির প্রকাশ্যেই বলছে, মেসি ছাড়া ওদের কিছু নেই। আরও বলছে, আর্জেন্টিনার চেয়ে আমরাই এগিয়ে। ঘুরিয়ে হলেও আসলে যা লিওনেল মেসিকে চাপে রাখারই ফন্দি। তবে তা অত্যন্ত কৌশলে!

বৃহস্পতিবার গ্রুপ ডি-র গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে মুখোমুখি হবে দুই দল। পয়েন্টের বিচারে সুবিধাজনক জায়গায় ক্রোয়েশিয়া। প্রথম ম্যাচে নাইজেরিয়াকে হারিয়ে গ্রুপশীর্ষে তারা। আর্জেন্টিনাকে আটকাতে পারলেই নকআউটের পথে অনেকটা এগিয়ে থাকবে ক্রোটরা। আর জিতলে তো প্রি-কোয়ার্টার নিশ্চিত।

অন্য দিকে, বিশ্বকাপ অভিযানের গোড়াতেই হোঁচট খেয়েছে আর্জেন্টিনা। নকআউটে যাওয়ার জন্য ক্রোয়েশিয়াকে হারানো খুব জরুরি। জিততে না পারলে মেসিদের অভিযানে গ্রুপেই থমকে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।

এই আবহে নিঝনি নভগরদ স্টেডিয়ামে নামছেন মেসিরা। দলে জেভিয়ার মাসচেরানো, অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া, সের্জিও আগুয়েরো, গঞ্জালো ইগুয়াইনরা থাকলেও নীল-সাদা সমর্থকদের আশা-ভরসা সেই এল এম টেন-ই। আর এটাই শুনিয়েছেন ক্রোয়েশিয়ার মিডফিল্ডার মাতেও কোভাসিচ। তিনি সাফ বলেছেন, “আর্জেন্টিনা বড্ড বেশি মেসি-নির্ভর। যদিও অন্য জায়গাগুলোতেও ভাল ফুটবলার রয়েছে ওদের। তবে মেসিকে বাকিদের অক্ষমতা ঢেকে দিতে হয় অধিকাংশ সময়। ও হল গ্রেট। যে কোনও মুহূর্তে ম্যাচের চেহারা পালটে ফেলতে পারে।”

এখানেই থামেননি কোভাসিচ। খোঁচা দিয়ে বলেছেন, “আমাদের অবশ্য আর্জেন্টিনাকে নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। মেসিকে বাদ দিলে, একক ভাবে আমরা সবাই ওদের চেয়ে এগিয়ে। আমাদের তাই নিজেদের দিকে তাকাতে হবে। বিপক্ষের দিকে তাকানোর দরকার নেই।”

অর্থাত্, মেসির প্রতি আস্থা, শ্রদ্ধা, সমীহ থাকছে। কিন্তু তা শুধু মেসির প্রতিই। আর্জেন্টিনার জন্য থাকছে সাবধানবাণী। যে, মেসিকে বাদ দিলে তোমরা অতি সাধারণ। দু’বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের শিবিরে যা চিমটিতে সীমাবদ্ধ থাকছে না। হুল হয়েই বিঁধছে।

মেসি কি পারবেন প্রতিভার ঝলকানিতে রাশিয়ায় কাপ-যুদ্ধ আলোকিত করতে? দি মারিয়ারা কি পারবেন দল হয়ে উঠতে? শুধু অস্তিত্বরক্ষার লড়াইয়ে থেমে থাকছে না লক্ষ্মীবারের মাঝরাতের ম্যাচ। জুড়ে থাকছে সম্মান আর মর্যাদার প্রশ্নও।

নিউজটি খেলা বিভাগে প্রকাশ করা হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *