কাপ্তাই বনশিল্প ইউনিটকে পপুলার করাই মূল লক্ষ্য: বনশিল্প চেয়ারম্যান


কাপ্তাই প্রতিনিধি:

এশিয়া মাহাদেশের সর্ববৃহৎ করাত কল (লাম্বার প্রেসেসিং কমপ্লেক্স)’কে রাবার কাঠের মাধ্যমে দেশের মধ্যে পপুলার করা তথা উৎপাদন কার্যক্রম যুগোপযোগী করার জন্য সংশ্লিষ্ট ইউনিট প্রধান তথা সকল শ্রমিক/কর্মচারীদের নির্দেশ প্রদান করেছেন বাংলাদেশ বনশিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএফআইডিসি)’র চেয়ারম্যান ও অতিরিক্ত সচিব সীমা সাহা।

বৃহস্পতিবার (১২ জুলাই) কাপ্তাই এলপিসি করাত কল, সিজনিং প্লান্ট, বয়ালার, প্লানিং মিলসহ পাঁচটি বিভাগ পরির্দশন করে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, অনেক পুরনো যন্ত্রপাতি আজও সচল রয়েছে। তবে লোকবল সংকট রয়েছে। ইতিমধ্যে গত বছর এ ইউনিট অনেক রাজস্ব আয় করেছে। রাবার কাঠের গুণাগুণ টেকসই, মজবুত। তা দিয়ে আসবাবপত্র বানিয়ে সরকারি/বেসরকারি নিকট পৌঁছে দেওয়াই আমাদের লক্ষ্য উদ্দেশ্য। রাবারের ফার্নিচার যেমন টেকসই-মজবুত, তেমন সুন্দর বলে তিনি মন্তব্য করেন।

বাংলাদেশ সরকার সকল শিল্প কল-কারখানাকে আরও উন্নয়নশীল করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

কাপ্তাইয়ের পরিত্যক্ত খোলা জায়গাকে কাজে লাগানোর জন্য আহ্বান জানিয়ে সীমা সাহা কাপ্তাইয়ের বিএফআইডিসির সকল কার্যক্রম ঘুরে দেখেন এবং কাজের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

পরে কাপ্তাই ইউনিট প্রধানের সাথে ২০১৮-১৯ সনের বার্ষিক কর্মসম্পাদনের চুক্তি স্বাক্ষর করেণ তিনি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন যুগ্মসচিব ও চটগ্রাম রাবার বিভাগের মহাব্যবস্থাপক মো. মোকসেুদর রহমান, উত্তম কুমার বসু, চট্রগ্রাম কালুর ঘাট ফিটকো ডিজিএম, কাপ্তাই এলপিসি ইউনিক প্রধান তীর্থজিৎ রায়, চট্রগ্রাম কালুরঘাট ডিজিএম মো. শফিকুল ইসলাম, কালুরঘাট সহ-মহাব্যবস্থাপক এসমপি হযরত আলী ভুইয়া ও কাপ্তাই হিসাব প্রধান মো. শাহজাহান প্রমুখ।

নিউজটি কাপ্তাই বিভাগে প্রকাশ করা হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *