কক্সবাজার পৌরসভা’র নির্বাচনে প্রার্থীদের জন্য জেলা নির্বাচন অফিসের নির্দেশনা


কক্সবাজার প্রতিনিধি:

আগামী ২৫ জুলাই কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষে প্রার্থীদের সুবিধার্থে জেলা নির্বাচন অফিসের পক্ষ থেকে গুরুত্বপূর্ণ কিছু নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এ নির্দেশনাগুলো অনুসরণ করলে প্রার্থীদের মনোনয়ন ফরম পূরণ ও যাবতীয় কাগজপত্র জমা দিতে সমাস্যা হবেনা বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার শিমুল শর্মা।

নির্দেশনাগুলো হলো- প্রার্থীদের মূল মনোনয়ন পত্রের সাথে ৩ সেট ফটোকপি দাখিল করতে হবে (অফসেট কাগজ অ-৪ সাইজ), মনোনয়ন পত্রে প্রার্থী, প্রস্তাবক ও সমর্থক কর্তৃক স্বাক্ষরিত হতে হবে, মনোনয়ন পত্রের নির্দিষ্ট স্থানে প্রার্থীর সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের ৩কপি সত্যায়িত ছবি ফরমের সাথে সংযুক্ত করতে হবে।

ভোটার তালিকার যে যে পৃষ্ঠায় প্রার্থী, প্রস্তাবক ও সমর্থকের নাম রয়েছে তা মার্কার কলম দিয়ে চিহ্নিত করে প্রার্থী কর্তৃক সত্যায়িত করে দিতে হবে, ২০০ টাকার নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পের হলফনামায় অতি গুরুত্বপূর্ণ ৭টি তথ্য (ফরমে উল্লেখিত) দাখিল করতে হবে, সর্বশেষ শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ দাখিল করতে হবে।

নির্বাচনের ব্যয় বিবরণীর সম্ভাব্য উৎস “ফরম- ঢ” পূরণ করতঃ দাখিল করতে হবে, চাহিত প্রতীকের ঘরে প্রতীকের নাম লিখতে হবে, ১২ ডিজিটের ঞওঘ (করদাতা সনাক্তকরণ নম্বর) সনদ সংযুক্ত করতে হবে, সর্বশেষ আয়কর রিটার্ন দাখিলের কপি ও আয়কর পরিশোধের প্রমাণ পত্র সংযুক্ত করতে হবে (আইটি ১০-ই পত্র সহ), প্রার্থী, প্রস্তাবক ও সমর্থক ৩ জনেরই জাতীয় পরিচয় পত্রের কপি সংযুক্ত করতে হবে, মেয়র পদে দলীয় প্রার্থীদের ক্ষেত্রে দলীয় প্রধান/দায়িত্বপ্রাপ্ত উপযুক্ত ব্যক্তি কর্তৃক দলীয় প্যাডে মনোনয়ন ঘোষণার চিঠি সংযুক্ত করতে হবে।

স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীদের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট পৌরসভার ১০০জন ভোটারের সমর্থন সূচক স্বাক্ষর তালিকা জমা দিতে হবে। তবে কোন স্বতন্ত্র প্রার্থী ইতিপূর্বে মেয়র পদে নির্বাচিত হয়ে থাকলে তাকে এ তালিকা দাখিল করতে হবে না, প্রার্থীকে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহের সময় ট্রেজারী চালান মূলে ছবি ছাড়া ভোটার তালিকার সিডি ক্রয় করতে হবে, মনোনয়ন পত্র দাখিলের পূর্বেই নির্বাচনী ব্যয় নির্বাহের জন্য তফসিলী ব্যাংকে একটি নতুন একাউন্ট খুলতে হবে এবং সাথে ব্যাংক স্লিপ জমা দিতে হবে ও ব্যক্তিগত খরচ ব্যতীত নির্বাচনী সমুদয় ব্যয়/ খরচ এই একাউন্ট হতে করতে হবে, নির্বাচিত প্রার্থীর গেজেট প্রকাশ হওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে প্রত্যেক প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর নির্বাচন ব্যয়ের রিটার্ন হলফনামা (ফরম- ণ এবং ত, ত-১, ত-২) দাখিল করতে হবে।

ভোটার তালিকার ইলেক্ট্রনিক্স কপি (ঈউ) ক্রয়ের মূল্য নিম্নরূপ (যাহা ট্রেজারী চালান মূলে জমা দিতে হবে) কোড নং-  ১-০৬০১-০০০১-২৬৩১ মেয়র ৬০০০ টাকা, কাউন্সিলর ৫০০টাকা, সংরক্ষিত কাউন্সিলর ১৫০০ টাকা, জামানতের টাকা জমাদানের প্রমাণ স্বরূপ ট্রেজারী চালানের মূল কপি জমা দিতে হবে।  প্রার্থীদের জামানত (ভোটার সংখ্যার অনুপাতে) কোড নং- ৬-০৬০১-০০০১-৮৪৭৩ মেয়র ২৫০০০ টাকা কাউন্সিলর ৫০০০টাকা সংরক্ষিত কাউন্সিলর ৫০০০টাকা, প্রার্থীদের ব্যক্তিগত ও দলীয় নির্বাচনী ব্যয় সীমা (ভোটার সংখ্যার অনুপাতে)  ব্যক্তিগত ব্যয় নির্বাচনী ব্যয় মেয়র ৩০,০০০টাকা, ৪০,০০০০ টাকা, কাউন্সিলর ৭০০০টাকা, ১,০০০০০টাকা সংরক্ষিত কাউন্সিলর সর্বোচ্ছ ২০ হাজার ভোটারের জন্য ১০,০০০টাকা ১,৫০০০০ টাকা তদুর্দ্ধ ভোটারের জন্য  ১৫০০০ টাকা ২,০০০০০ টাকা।

কক্সবাজার জেলা নির্বাচন অফিসার মো. মোজাম্মেল হোসেন বলেন, কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন করতে আমরা বদ্ধ পরিকর।

প্রার্থীদের সুবিধার্থে যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে তা যথাযতভাবে মেনে চলার অনুরোধ করা হলো। তিনি নির্বাচনী আচরণ বিধি মেনে চলতে ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *