কক্সবাজারে ৩ দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলা শুরু


কক্সবাজার প্রতিনিধি:

সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সম্পর্কে জনগণকে অবহিত এবং জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট প্রকল্প গ্রহণকে ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে উন্নয়নের রোল মডেল শেখ হাসিনার বাংলাদেশ’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে কক্সবাজারে ৩ দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলা শুরু হয়েছে।

১১ জানুয়ারি সকাল ১০টায় শহীদ দৌলত ময়দানে মেলার উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) ড. এম এমদাদুল হক। পরে জেলা প্রশাসন আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক। জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমেদ চৌধুরী, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান লে. কর্ণেল অব: ফোরকান আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফাসহ সংশ্লিষ্টরা বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ গঠনে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম জনসাধারণের সামনে তুলে ধরতে দেশজুড়ে উন্নয়ন মেলার আয়োজন করা হচ্ছে। বর্তমান সরকারের সময় নেওয়া বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের সঙ্গে দেশের প্রান্তিক জনগণসহ আপামর জনগোষ্ঠীকে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে এ উন্নয়ন মেলা।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা ও সরকারি কর্মকর্তা পরস্পরের মতবিনিময়ের মাধ্যমে স্থানীয় সমস্যা ও সম্ভাবনাগুলো চিহ্নিতকরণ, পরিকল্পনা প্রণয়ন, ও বাস্তবায়নে এই মেলা বিশেষ ভূমিকা রাখবে। প্রতিটি মানুষ যাতে আত্মবিশ্বাসের মাধ্যমে মর্যাদার সাথে জীবনযাপন করতে পারে সে লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মাহিদুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট খালেদ মাহমুদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম রুহুল কুদ্দুছ, সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটগণ, সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের প্রধানগণসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

মেলায় বিশেষায়িত যেসব উন্নয়ন কার্যক্রম প্রকল্প রয়েছে তার মধ্যে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর আর্থ সামাজিক অবস্থার উন্নয়নের জন্য একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প, ছিন্নমূল ও গৃহহীনে আশ্রয় দানের লক্ষ্যে আশ্রয়ন প্রকল্প, আধুনিক পাঠক্রম ও জনগণের দোরগোড়ায় ই-সেবা নিশ্চিত করতে ডিজিটাল বাংলাদেশ, শিক্ষা বৃত্তি ও বই বিতরণের উদ্দেশে শিক্ষা সহায়তা, নারীর ক্ষমতায়ন, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ, তৃণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা পোঁছে দিতে কমিউনিটি ক্লিনিক ও মানসিক স্বাস্থ্য, অসহায় নাগরিকদের সহায়তায় সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি ইত্যাদি।

এবারের মেলায় সেনাবাহিনী, সরকারের বিভিন্ন অধিদপ্তর, ব্যাংক, বীমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ ৯০টি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করছে। যেখানে বিনামূল্যে সরকারি সেবাসমূহ ও তথ্য প্রদান করা হচ্ছে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত মেলা চলবে। এছাড়া প্রতিদিন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমেও দেশের মুক্তিযুদ্ধ ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের নানা দিক তুলে ধরা হবে। ১৩ জানুয়ারি পর্যন্ত চলবে মেলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *