উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে নৌকায় ভোট চাইলেন এমপি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা


গুইমারা প্রতিনিধি:

পার্বত্য চট্টগ্রাম উপজাতীয় শরণার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্স চেয়ারম্যান ও সাংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে পাহাড়ে উন্নয়নের জোয়ার উঠেছে’। তাই উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে সকলকে এক সাথে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে আগামী নির্বাচনে আবারও নৌকা প্রতীকে ভোট চাইলেন সাংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

শনিবার (২৬ মে) দুপুরে খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার নবসৃষ্ট বড়পিলাক বাজারের উদ্ভোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি আরও বলেন, পার্বত্য এলাকার মানুষ শান্তিপ্রিয়, আর সরকারও পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছে। কিন্তু বিএনপি ক্ষমতায় থাকলে পাহাড়ে লাশের মিছিল দীর্ঘ হয়।

বড়পিলাক বাজার কমিটির আহ্বায়ক মংশে চৌধুরী’র সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজুরী চোধুরী, সিন্দুকছড়ি জোন অধিনায়ক লে. কর্ণেল রুবায়েত মাহমুদ হাসিব, গুইমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ বড়ুয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক মেমং মারমা, হাফছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান চাইথোয়াই চৌধুরী, বাজার পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব আইয়ুব আলী প্রমুখ।

এছাড়াও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময়ে গুইমারা সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেমং মার্মা বলেন, অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী আওয়ামী লীগ সরকার। সারাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বন্ধন অটুট রাখাই তার প্রধান লক্ষ। সে হিসেবে ৫৬০ মডেল মসজিদ, ৫৬০টি দারুল আরকাম মাদ্রাসাসহ কওমী মাদ্রাসার স্বীকৃতি প্রদান করেছে সরকার। অন্যন্য ধর্মাবলম্বীদের জন্য মন্দির কেয়াংসহ ধর্মিয় উপসনালয়ের কাজ করে যাচ্ছেন। যারা আওয়ামী লীগ সরকারকে ধর্ম বিদ্বেষী বলে এটা কতটুকু সঠিক তা জাতি বিচার করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বাজার পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব আইয়ুব আলী জানান, গুইমারা উপজেলার মডেল হিসেবে বড়পিলাক বাজারের কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। সরকার জালিয়াপাড়া হইতে মহালছড়ি সড়কের উন্নয়ন কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। ইতিমধ্যে কাজের অনেকটা শেষ হয়েছে। ১৬ আনা কাজ শেষ হলে রাঙ্গামাটির সাথে যাতায়াত ব্যবস্থা সহজ হয়ে যাবে। তখন বড়পিলাক জালিয়াপাড়া হবে এজেলার অন্যতম প্রাণ কেন্দ্র। সে লক্ষে সরকার এবং আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *