উখিয়ায় আমন চাষের ফসল রক্ষায় শুরু হয়েছে ক্যাম্পেইন, চাষীদের ব্যাপক সাড়া



উখিয়া প্রতিনিধি:

উখিয়ায় আমন চাষাবাদ ও ফসল রক্ষায় ক্ষতিকারক পোকা মাকড় এবং রোগ বালাই দমনে চাষীদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে শুরু হয়েছে বিশেষ ক্যাম্পেইন। মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে ভিডিও প্রদর্শনীর মাধ্যমে চাষীদেরকে উদ্বুদ্ধ করতে উপজেলা কৃষি বিভাগ এ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। কীটনাশক ছাড়াই নিরাপদ ফসল উৎপাদনে জৈবিক পদ্ধতি ব্যবহারে কৃষকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া পেয়েছে বলে জানিছেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা (কৃষিবিদ) মো. শরিফুল ইসলাম।

উপজেলা কৃষি বিভাগ জানান, ৫টি ইউনিয়নে চলতি আমন মৌসুমে ৯ হাজার ১০ হেক্টর জমিতে আমন চাষের আবাদ হয়েছে। যা গত বছরের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি। হাই ব্রীড, উন্নত জাত ও ঊপসী জাতের বীজ দিয়ে চাষাবাদ করছে স্থানীয় চাষীরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, চাষাবাদে সম্ভাব্য ক্ষতিকারক পোকা মাকড় ও রোগ বালাই দমনে কৃষকদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধিকরণ কর্মসূচির আওতায় কার্যক্রম শুরু করেছে। বিপিএইচ, পাতা মোড়ানো পোকা, ব্লাস্ট ও বিএলবিসহ নানা রোগ নিয়ন্ত্রণে উখিয়ার রাজাপালং, রত্মাপালং, হলদিয়া পালং, জালিয়া পালং ও পালংখালী ইউনিয়নে বিশেষ ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে নানা প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম জানান, সন্ধ্যায় পথসভার মাধ্যমে চাষীদেরকে জমায়েত করে মাল্টিমিডিয়ার সহায়তায় আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ, পরিচর্য়া, জৈবিক উপায়ে পোকা মাকড় ও রোগ বালাই দমনের দৃশ্যের ভিডিও প্রদর্শন করা হচ্ছে।

এছাড়াও ক্ষতিকারক পোকা মাকড় হতে ফসল রক্ষা করার জন্য পাচিং পদ্ধতি ও আলোক ফাঁদ ব্যবহারের উপকারিতা সর্ম্পকে চাষীদেরকে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষে কৃষি বিভাগ মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছে।
এদিকে বিপিএইচ, পাতা মোড়ানো পোকা, ব্লাস্ট ও বিএলবি সহ নানা রোগ বলাই দমনে গত রবিবার উখিয়ার বটতলী স্টেশনে সন্ধ্যায় বিশেষ ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠি হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম।

রত্মাপালং ভালুকিয়া গ্রামের হারুন অর রশিদ (৪৮) হলদিয়া পালংয়ের মোহাম্মদ শফি (৫২) জানান, কৃষি বিভাগের পরামর্শ নিয়ে জৈবিক উপায়ে চাষাবাদে রোগ বালাই দমন করা সম্ভব হয়েছে।

জালিয়া পালংয়ের কৃষক ফরিদুল আলম (৫৪) বলেন, কীটনাশক ব্যবহার ছাড়াই পোকা মাকড় দমনে পাচিং পদ্ধতি ও আলোক ফাঁদ ব্যবহার খুবই উপকারী। এতে করে অর্থ সাশ্রয় ও সময় অপচয় কম হয়।

উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা (উন্নয়ন) এসএম শাহ জাহান জানান, মাইকিংয়ের পাশাপাশি কৃষকদেরকে উদ্বুদ্ধ করতে উখিয়ার বিভিন্ন স্পটে ভিডিও প্রদর্শন, ক্ষতিকারক পোকা মাকড় সনাক্ত ও দমনের পদ্ধতি ব্যবহার সর্ম্পকে ছবি প্রদর্শনে ব্যাপক সাড়া লক্ষ করা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *