মানিকছড়িতে ইউপি চেয়ারম্যান পদে আ’লীগ প্রার্থী ক্যয়জরী মহাজন বিজয়ী


মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

মানিকছড়ি উপজেলার ৩নং যোগ্যাছোলা ইউনিয়ন পরিষদের স্থগিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী  ক্যয়জরী মহাজন বিপুল ভোটে বিজয়ী। তিনি পেয়েছেন ৪ হাজার ১শত ৭২ ভোট। নিকটতম বিএনপি প্রার্থী পেয়েছেন ১ হাজার ৮ শত ৭ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী পেয়েছেন (এক কেন্দ্র ব্যতিত) ৯ শত ১ভোট।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় কেন্দ্রে ভোট গণনা শেষে দলীয় সূত্রে প্রাপ্ত ফলাফলে দেখা গেছে, ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রে চেয়ারম্যান পদে ৩জন, সাধারণ সদস্য পদে ২৫ ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৮জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। চেয়ারম্যান পদের বেসরকারি ফলাফলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী অবসরপ্রাপ্ত ক্যয়জরী মহাজন পেয়েছেন ৪ হাজার ১শত ৭২ ভোট। নিকটতম বিএনপি প্রার্থী পেয়েছেন ১ হাজার ৮ শত ৭ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী পেয়েছেন (এক কেন্দ্র ব্যতিত)  ৯ শত ১ভোট।  মোট ভোটার সংখ্যা ৮৮৪৩, পুরুষ ৪৩৯০জন, মহিলা ৪৪৫৩জন। চেয়ারম্যান পদে ভোট পড়েছে ৬ হাজার ৮ শত ৮০ ভোট(বেসরকরি ফলাফল)।

এদিকে ভোট গ্রহণকে ঘিরে সকাল থেকে প্রতিটি কেন্দ্রসহ আশে-পাশে ছিল উৎসবমূখর পরিবেশ ।   সাধারণ ও সংরক্ষিত সদস্য পদে একাধিক দলীয় প্রার্থী থাকায় ভোটাররা কেন্দ্রে মুখ খুলেনি।   ভোটে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের পদচারণা দেখা গেলেও বিএনপি’র সিনিয়র কোন নেতা চোখে পড়েনি। দুপুর ২টার পর স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ আলমাছ মিয়া সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, বহিরাগতদের প্রভাবে কেন্দ্রে তার ভোটাররা আসতে পারেনি। যারা এসেছেন তাদেরকে সরকার দলীয় লোকজন প্রভাবিত করেছে। তবে বিষয়টি অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ক্যয়জরী মহাজন বলেছেন, তার  পক্ষ থেকে কোন ভোটারকে ভয়-ভীতি, কিংবা প্রভাব বিস্তারের মত কোন ঘটনা ঘটেনি। এসব পরাজিত প্রার্থীর মনগড়া বক্তব্য। এ বিজয়ে তিনি দলীয় নেতা-কর্মীসহ সকল ভোটারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

এদিকে নির্বাচন সুষ্ঠু, সুন্দর ও নিরপেক্ষ করতে সকাল থেকে প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ছাড়াও সর্বত্র আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সতর্ক টহল অব্যাহত ছিল। এছাড়া ৫জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সার্বক্ষণিক ভ্রাম্যমান দায়িত্ব পালন করেছেন। এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত প্রিসাইডিং ও সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারগণ ফলাফল নিয়ে কন্ট্রোল রুমে আসতে শুরু করেছেন।

উল্লেখ্য যে, ২০১৬ সালে উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে একযোগে নির্বাচনের তফশীল ঘোষণা হলেও সীমানা বিরোধ সংক্রান্ত জনৈক ব্যক্তির মামলার প্রেক্ষিতে আদালতের নির্দেশে প্রচারণার শেষ মূর্হুত্বে এসে উপজেলার ৩নং যোগ্যাছোলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন স্থগিত করেছিল নির্বাচন কমিশন। দীর্ঘ সময় পর মামলা নিস্পত্তি হওয়ায় গত ১০জুন নির্বাচনী তফশীল অনুযায়ী ২৫ জুলাই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *