আমরা অস্ত্র জমা দিয়েছি কিন্তু প্রশিক্ষণ, মেধা ও কৌশল জমা দেইনি: জেএসএস নেতৃবৃন্দ


থানচি প্রতিনিধি:

আমরা অস্ত্র জমা দিয়েছিলাম কিন্তু প্রশিক্ষণ, মেধা, যুদ্ধের কৌশল জমা দেইনি বলে সরকারকে হুঁশিয়ার করে দিলেন জন সংহতি সমিতি নেতৃবৃন্দ।

তারা বলেন, অভিলম্বে পার্বত্য শান্তি চুক্তি শতভাগ বাস্তবায়ন করুন। আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে যাচ্ছে, পূর্বের অবস্থায় ফিরে যেতে বাধ্য করবেন না।

শনিবার (২ ডিসেম্বের) সকাল ১০টায় থানচি বাজার প্রাঙ্গনে শান্তি চুক্তির ২০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে থানচি উপজেলা জনসংহতি সমিতির আয়োজিত জনসভায় জেএসএস নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন।

বক্তারা আরো বলেন, ১৯৯৭ সালের গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাথে তৎকালিন শান্তি বাহিনী বর্তমান জনসংহতি সমিতির সাথে করা শান্তি চুক্তি ২০তম বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠিত হলো। বর্তমান সরকার সাড়ে তের বছর ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় চুক্তির কোন অংশ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। ভবিষ্যতে ক্ষমতায় আসলেও কিছু করতে পারবে না। কালক্ষেপন না করে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির দাবি পূরণ করার আহ্বান জানান।

থানচি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও জনসংহতি সমিতির সভাপতি চসাথোয়াই মারমার (পক্শে) সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জনসংহতি সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক জলিমং মারমা।

আরো উপস্থিত ছিলেন, থানচি উপজেলা শাখা সাধারণ সম্পাদক মেমংপ্রু মারমা, সহ-সভাপতি ম্যানওয়েল ত্রিপুরা, সাংগঠনিক সম্পাদক মংসাচিং মারমা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জন ত্রিপুরাসহ সভাপতি নুমংপ্রু মারমা (টাইগার) পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ থানচি উপজেলা শাখা সভাপতি মংছোরী মারমা, সাধারণ সম্পাদক থুইমংপ্রু মারমা প্রমুখ।

One thought on “আমরা অস্ত্র জমা দিয়েছি কিন্তু প্রশিক্ষণ, মেধা ও কৌশল জমা দেইনি: জেএসএস নেতৃবৃন্দ


  1. দেখ  ক্ষুধার্ত রহিংগা বাঙ্গালিদের উতবাস্তু শিবির । 
     মুক্তি ছাড়া মিটবে না এ ক্ষুধা আমরা মুক্তিকামী রনবিড় । 
     আরাকান এবং পার্বত্য চট্টগ্রামে বাঙ্গালি  নিধন প্রকল্পে  ব্যাস্ত ওরা দিন রাত    । 
    আমরা রোহিঙ্গা আমারা বাঙ্গালি  ভেঙ্গেদিব ওদের বিষদাঁত  ।
    সেথায় বানাব  অগণিত মসজিদের দুর্গ করতে  বৈষমমের চির অবসান । 
    লং মার্চ টু আরাকান ।
    ১০
    সবাই রেখে কাঁধে কাঁধ ।
    এস ভেঙ্গেফেলি বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে নির্মিত কাপ্তাই বাধ ।
    জীবন জিবিকার কর্ণফুলী নৌ পথ আবারো করি সচল ।
    মিটেজাক দন্দ পাহার সমতল ।
    সেথায় গড়েতুলি রোহিঙ্গা বাঙ্গালিদের জনপথ রাখতে দেশের সার্বভৌমত্বে অবদান ।
    লং মার্চ টু আরাকান ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *