parbattanews bangladesh

অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিংয়ের বিভিন্ন ইউনিটকে শক্তিশালী করতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

পুলিশের সঙ্গে জনসম্পৃক্ততা বাড়াতে প্রতি বছর অক্টোবর মাসের শেষ শনিবার কমিউনিটি পুলিশিং ডে পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুলিশ সদর দফতর। সে মোতাবেক ‘পুলিশই জনতা, জনতাই পুলিশ’ শ্লোগানকে সামনে রেখে সারাদেশের ন্যায় খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পালিত হয়েছে ‘কমিউনিটি পুলিশিং ডে’।

দিবসটি উপলক্ষ্যে শনিবার (২৮ অক্টোবর) বেলা ১২টার দিকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শেষে মাটিরাঙ্গা থানা কমপাউন্ডে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি ও মাটিরাঙ্গা পৌরসভার মেয়র মো. শামছুল হক। আলোচনা সভায় সিনিয়র সহাকারী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তৌফিকুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ মো. জাকির হোসেন আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন।

ট্রাফিক ইন্সপেক্টর মো. জয়নাল আবেদীন’র পরিচালনা খাগড়াছড়ি জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মো. রইচ উদ্দিন, তাইন্দং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন কবীর, মাটিরাঙ্গা পৌর কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি এমএম জাহাঙ্গীর আলম ও কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সমন্বয়কারী মাটিরাঙ্গা থানার উপপরিদর্শক এসআই মো. আবদুল বাতেন বক্তব্য রাখেন।

কমিউনিটি পুলিশিংয়ের মাধ্যমে জনগণের স্বার্থরক্ষাসহ অপরাধ দমন করা সম্ভব উল্লেখ করে সহকারী পুলিশ সুপার (রামগড় সার্কেল) মোহাম্মদ তৌফিকুল ইসলাম বলেন, জনগণের সহযোগিতা ছাড়া পুলিশের পক্ষে অপরাধ দমন সম্ভব নয়। এজনই কমিউনিটি পুরিশিং কার্যক্রমকে জোরদার করার পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। পৃথিবীর প্রায় দেশেই কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম কার্যকর আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের কমিউনিটি পুলিশিংয়ের বিভিন্ন ইউনিটকে শক্তিশালী করতে হবে। এজন্য সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন।

পার্বত্য অঞ্চলে মাদক ও চাঁদাবাজীর মত অপরাধ প্রবনতা কমাতে হলে কমিউনিটি পুলিশিংয়ের গুরুত্ব অনেক উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, কমিউনিটি পুলিশিংয়ের মাধ্যমেই কঠিন কাজকে সহজ করে তুলতে হবে। পাহাড়ি-বাঙ্গালী নয়, আমরা সকলে একই মায়ের অভিন্ন সন্তান হিসেবে অপরাধ দমনে পুলিশ বাহিনীকে সহযোগিতা করতে হবে। তবেই পাহাড়ি জনপদ শান্তির জনপদে পরিনত হবে।

সভাপতির বক্তব্যে মাটিরাঙ্গা উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি মো. শামছুল হক কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সদস্যদের সম্মানী ভাতা দেয়ার দাবি জানিয়ে বলেন, তাহলে কাজের জবাবদিহিতা সুনিশ্চত করা সম্ভব হবে। মাটিরাঙ্গায় কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সকল কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে জনমতের ভিত্তিতে নতুন কমিটি গঠন করা হলে কাজে গতি ফিরে আসবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ ছাড়াও মাটিরাঙ্গা উপজেলা ও পৌর কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন।